«

»

এই লেখাটি 964 বার পড়া হয়েছে

Print this প্রকাশনা

শ্রদ্ধেয় স্যার প্রসিত বিকাশ খীসা,

শ্রদ্ধেয় স্যার প্রসিত বিকাশ খীসা,

অনেকদিন হয়ে গেলো, অনেকে হয়ত আশাব্যহৃত হয়েছেন । অঙ্গীকার করেছিলাম স্যার সন্তু লারমাকে খোলা চিঠি দেয়ার পর আপনাকে ও একটা পাঠাবো । অনেক দিন গড়িয়েছে, সাথে মাস; এরই মধ্যে অনেক রক্ত ঝরেছে, পাহাড় কেঁপেছে, অনেক মা সন্তানহারা হয়েছেন, সন্তান বাবা হারা হয়েছে । পাহাড়ের ঝরে পড়া প্রতিরক্তবিন্দুর মাঝে আমি ছিলাম, আজীবন থাকবো । তবুও আক্ষেপ থেকে যাচ্ছে, আমার ব্যক্তিগতভাবে রাজনৈতিক ময়দানে বজ্রকন্ঠ বাজানোর সুযোগ হয়ে উঠেনি । এরজন্য আপনারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে দায়ী । ছোটকাল থেকে রাজনৈতিক চেতনায় বেড়ে উঠেছি, ভেবেছিলাম একদিন স্বজাতির মুক্তিকল্পে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করবো । কিন্তু, সে সুযোগতো হরণ করে নেয়া হয়েছে । ১৯৯৮ সালে সেই খাগড়াছড়ির স্টেডিয়ামে আমি ও উপস্থিত ছিলাম । আপনাদের পক্ষ থেকে (যদিও সেসময় ইউপিডিএফ-এর জন্ম হয়নি) শান্তিবাহিনী কর্মীদের উদ্দেশ্য “আফোসচুক্তি মানি না, পূর্ণস্বায়ত্বশাসন চাই” অনেক রকমের শ্লোগান উচিয়ে দেয়া হয় । আমি সেপাশে হতভম্বভাবে নীরব দর্শকের ভুমিকায় ছিলাম । ভ্রাতৃহত্যার বীজ সেখানে দেখতে পেয়েছি, যা একযুগের অধিক হতে চলেছে ।

আপনারা ভ্রাতৃঘাত বন্ধের যে কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন বা আহ্বান করেছেন সেজন্য অবশ্যই সাধুবাদ/ধন্যবাদ জানাই । কিন্তু আমার সন্দেহ ঠেকে যাচ্ছে সহিংষতা বন্ধকল্পে আপনি কতটুকু দক্ষভাবে চিন্তা করছেন ? আপনাদের জানা উচিত সহিংষতা নিমিষে ছড়িয়ে যেতে পারে, তবে ইচ্ছে করলে ও তা বন্ধ করা যায় না । এরজন্য দরকার পড়ে কৌশল অবলম্বনের । কিন্তু আমি আপনাদেরকে অনেক উদাসীন দেখি যদিও ভ্রাতৃহত্যা বন্ধ করতে আহ্বান জানান । আপনাদের কতটুকু স্বদিচ্ছা আছে তাও প্রশ্নাতীত । স্বদিচ্ছা যদি থেকে থাকে, তাহলে তবুও বারবার সবদোষের আঙ্গুলি শুধু স্যার সন্তুর দিকে নিক্ষেপ করেন কেনো ?

দোষে-গুনে সংসার । দোষ সবাই করে, কিন্তু একজনের দোষের বোঝা সকল নিরীহ জনগণের উপর অর্পিত করা বোকামির । বোকারা অন্যের দোষ নিয়ে সারাদিন লুটেপড়ে থাকে, তাতে উন্নয়নের ঘাটতি হয় কেননা একজনের দোষ খুঁজে বসে থাকা মানে একস্থানে স্থিমিত হয়ে পড়ে থাকা । কিন্তু, আপনাদের হুংকার এবং দোষারোপ যা স্যার সন্তুর উপর নিক্ষেপ করেন তাতে নিদেনপক্ষ নিশ্চিতভাবে ফুঁসে উঠবে তা স্বাভাবিক ।

স্যার, আপনাদের দুদলে অনেক মূর্খ কিন্তু সাদাসিদে মানুষ আছেন, যারা রক্তবিনা কিছুই চিনে না তাদেরকে সামলাতে আপনাদের হিমছিম খেতে হয় তা জানি । তবে, এভাবে আর কতদিন ? আমরা এখন চারদিক থেকে বাঁধা পড়ে আছি । যেদিকে তাকায় শুধু রক্ত দেখি । সেটেলার এবং আর্মিদের হাতে যতগুলো জুম্ম লাঞ্জিত/জখম/গুম/হত্যা হচ্ছেন তারচেয়ে বেশি হচ্ছে আপনাদের ভ্রাতৃহত্যাতে । এরজন্য আপনার দলের মনের গভীরের উপলব্দি কামনা করছি ।

একদিন আপনারা মাঠ কাঁপিয়েছেন । সুযোগটা ঘটেছিল যারপিছনে তৎকালীন শান্তিবাহিনীদের গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল তা আপনাদের অকপটে স্বীকার করে নেয়া উচিত । আপনাদের পূর্ণস্বায়ত্বশাসন কতটুকু এগুলো তা আমার ভাবনার বিষয় নয় । তবে ভ্রাতৃহত্যাকে ইতি হিসেবে দেখতে চাই । ছোটমুখে অনেক বড় কথা বলে চলেছি, বয়স আমাদের ও বেড়ে চলেছে, দিনদিন উদ্যোমগুলো ও হারিয়ে যেতে বসেছে । তাই সময়ের ব্যস্ততার ফাঁকে বসে যা সম্ভব হয় তাই লিখে চলি ।

স্যার, আপনারা যদি সত্যিকার অর্থে ভ্রাতৃহত্যা বন্ধ করতে চান তাহলে শুধু মুখে নয়, মানসিকভাবে ও প্রতিফলিত করার চেষ্টা করুন । যদি সত্যিকাভাবে এ ভ্রাতৃহত্যার দাবী মানসিকতাকে প্রতিফলিত করতে পারেন তাহলে দেখবেন অনেকেই পাশে দাঁড়াবে । জেএসএস যেমন আপনাদের নেতা/কর্মী হত্যা করেছে ঠিক একইভাবে আপনারা ও হত্যা করেছেন । তাই আসুন কে কতজন হত্যা করেছে সেসব হিসেব/নিকাশ না করে ঐক্যতার দিকে হাঁটি আর এক সুন্দর পার্বত্য চট্রগ্রাম অনাগত ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য উপহার হিসেবে রেখে দিয়ে যায় ।

এভাবে দীর্ঘদিন ভ্রাতৃহত্যা চলতে দেয়া যায় না; যেহেতু এর কোনরকম ভবিষ্যত নেই । অচিরে শুধু স্যার সন্তু না এজন্য আপনারা ও দোষের ভার এড়িয়ে যেতে পারেন না । তাই ভ্রাতৃহত্যা বন্ধের আবেদন আরো জোড়ালো এবং মানসিকভাবে প্রতিফলিত করতে হবে । অবশ্যই জেএসএসের নেতা স্যার সন্তুর একগুয়েমি মনোভাব ও পরিবর্তন করতে হবে । আপনারা দুজনে দয়া করে এই হত্যাযজ্ঞ রাজনীতি থেকে আমাদের মুক্তি দিন ।

ইতি,

এক অভাগা জুম্মসন্তান

অমিত হিল

About the author

অমিত হিল

Permanent link to this article: http://chtbd.org/archives/1406

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>